google.com, pub-3911003045807462, DIRECT, f08c47fec0942fa0

ছোটখাটো ব্যবসা কি করা যায়? ছোট ব্যবসার আইডিয়া বাংলাদেশ

ছোটখাটো ব্যবসা কি করা যায়: আজকের আর্টিকেলে আমি যেসব ব্যবসা বাংলাদেশ থেকে করা যায় অর্থাৎ ছোট ব্যবসার আইডিয়া বাংলাদেশ (Small business ideas Bangladesh)  সম্পর্কে আলোচনা করব।

আপনি যদি একজন বাংলাদেশের বসবাসকারী হন এবং আপনার ব্যবসা করার প্রয়োজন পড়ে। কিন্তু কোন ধরনের বা ছোটখাটো ব্যবসা কি করা যায়? সে সম্পর্কে কোন আইডিয়া না থাকে তাহলে আজকের আর্টিকেলটি আপনার জন্য।

তাই আর্টিকেলটি মনোযোগ সহকারে পড়তে থাকুন । কেননা সম্পূর্ণ আর্টিকেলটি মনোযোগ সহকারে পড়ার ফলে আপনি বিভিন্ন ধরনের ব্যবসা করার জন্য ছোটখাটো ব্যবসার আইডিয়া গুলো পেয়ে যাবেন।

তবে আপনার ব্যবসা কি এবং কিভাবে করতে হয় তা সম্পর্কে পূর্ব থেকেই কিছু ধারণা থাকতে হবে।

আমাদের অনেকেরই ধারণা থাকে যে, বড় ব্যবসার চেয়ে ছোট ব্যবসাতে লাভ কম । আসলে ব্যাপারটা ঠিক বিপরীত।

কারণ আপনি ভালো করে খেয়াল করে দেখবেন যে ছোট ব্যবসাতে বড় বড় ব্যবসার তুলনায় অনেক বেশি পরিমাণে লাভ হয়ে থাকে।

উদাহরণ স্বরূপে- 

ধরুন আপনি একটি ব্রাশ ২০ টাকায় কিনে ৩০ টাকায় বিক্রি করতে পারবেন হকারির মতো ছোট ব্যবসা করে ।  অর্থাৎ শতকরা ৫০ % লাভ করে ফেললেন।

অথবা আপনি একটি ফটোকপি করে গ্রাহকের কাছ থেকে ২ টাকা নিলেন । অথচ একটি ফটোকপি করতে সবমিলিয়ে আপনার সর্বোচ্চ খরচ হবে ৯০ পয়সা থেকে ১ টাকা । অর্থাৎ দ্বিগুন লাভ করে ফেললেন।

কিন্তু বড় ব্যবসাগুলোতে এরকম ভাবে কখনোয় লাভ করতে পারবেন।

সাধারণত বড় ব্যবসাগুলোতে ৫-৭ হাজার টাকার একটি পন্য বিক্রি করে মাত্র লাভ করতে পারবেন ৩০০ থেকে ৫০০ টাকা।

তাই বড় ব্যবসার চেয়ে ছোট ব্যবসাতে লাভ অনেক বেশি করা যায়।

তাছারা ছোট ব্যবসা করার জন্য তেমন পুঁজির প্রয়োজন হয় না । কম পুঁজিতে লাভজনক ব্যবসা করতে পারবেন ছোট ব্যবসার আইডিয়া গুলোর মাধ্যমে।

তো বন্ধুরা চলুন এখন আমরা বাংলাদেশ থেকে ছোটখাটো ব্যবসা কি করা যায়? তা বিস্তারিত জেনে নেই।

ছোট ব্যবসার আইডিয়া বাংলাদেশ – ( Small business ideas Bangladesh )

ছোটখাটো ব্যবসা কি করা যায় , ছোট ব্যবসার আইডিয়া বাংলাদেশ , গ্রামে ছোট ব্যবসার আইডিয়া , কম পুঁজিতে লাভজনক ব্যবসা , Small business ideas
Small business ideas

বর্তমানে বাংলাদেশের লাভজনক ব্যবসাগুলোর মধ্যে যেসব ছোট ব্যবসা রয়েছে সেগুলো আপনি গ্রাম এবং শহর সবখানেই করতে পারবেন।

কম টাকার লাভজনক ব্যবসা আইডিয়া গুলো হলো-

১. মুরগী বিক্রয়-

আপনি যে কোনে যায়গাতে থেকেই এই মুরগী বিক্রি ব্যবসাটি করতে পারবেন । এই ব্যবসার করার জন্য আপনার তেমন বেশি টাকার প্রয়োজন হবে না । আপনি কম টাকায় এই ব্যবসাটি করতে পারবেন।

আপনি চাইলে গ্রাম অথবা শহরের যেখানে আপনার ভালো হয় সেখানে একটি দোকান দিয়ে সেখানে মুরগী কিনে এনে বিক্রি করতে পারেন।

সাথে আপনি মুরগী ড্রেসিং করার সরঞ্জামাদীও রাখতে পারেন। যাতে করে আপনি মুরগীর জবাই করার পর তা পরিষ্টার করে দেওয়ার সার্ভিস দিতে পারেন।

তাহলে আপনি অনেক বেশি কাস্টমার পাবেন । এবং ছোট ব্যেবসা থেকে বেশি টাকা ইনকাম করতে পারবেন।

তাছাড়াও শহরে অনেকেই হাতে হাতে মুরগী নিয়ে অলি গলিতে বিক্র করে থাকেন । এর জন্য কোনো দোকানের প্রয়োজন হয় না।

তাই আপনি চাইলে আপনার সামর্থ অনুযায়ী ইনভেস্ট করে গ্রাম থেকে মুরগী কিনে তা গ্রামের বাজারে অথবা শহরে বেশি দামে বিক্রি করতে পারেন।

২. মাছ বিক্রির ব্যবসা-

কথায় আছে মাছে ভাতে বাঙালি । তাই আপনি গ্রাম অথবা শহরে যেকোনো জায়গায় মাছ বিক্রি ব্যবসাটি করতে পারেন।

এর জন্য আপনার বেশি টাকার প্রয়োজন পড়বে না । অল্প টাকায় আপনি এই ব্যবসাটি করতে পারবেন।

এই ব্যবসা করার জন্য আপনাকে গ্রামের অথবা শহরের নির্দিষ্ট একটি জায়গায় প্রতিদিন অথবা হাটের দিন মাছ বিক্রি করতে হবে।

প্রথমেই পাইকারি মাছ কিনে এনে সেগুলো খুচরা দরে আপনাকে বিক্রি করতে হবে।

আরো জানুন, 

আপনি চাইলে এই ব্যবসাটি একটি ভ্যান গাড়ি ভাড়া করে নিয়ে অথবা ভাড়ে করে নিয়ে গ্রামে অথবা শহরের অলিতে গলিতে ঘুরে ঘুরে মাছ বিক্রির ব্যবসাটি করতে পারেন।

এতে আপনার খরচ কম হবে কিন্তু লাভ অনেকটাই বেশি করতে পারবেন।

৩. মধু বিক্রি –

আপনি চাইলে মধু বিক্রির মতো ছোটখাটো ব্যবসাটি করে অনেক টাকা ইনকাম করতে পারেন । মধু বিক্রি করার জন্য আপনি গ্রাম থেকে যারা মধুর চাক কেটে থাকেন তাদের কাছ থেকে মধু সংগ্রহ করে রাখতে হবে।

আপনি গ্রাম থেকে মধু সংগ্রহের সময় কম দামে কিনে রাখতে পারবেন । এরপর সেগুলো আপনি সরাসরি অথবা অনলাইনের মাধ্যমে বিক্রয় করতে পারবেন।

অনলাইনের মাধ্যমে বিক্রয় করার জন্য আপনাকে ফেসবুক অথবা অন্যান্য প্ল্যাটফর্ম থেকে প্রচার করার জন্য একটি একাউন্ট খুলে নিতে হবে।

তারপর আপনি আপনার একাউন্টে মধু বিক্রয় করা হয় মর্মে প্রচার প্রচারনা চালিয়ে যান।

আপনি মধুর গুনাগুন, দাম, যোগাযোগ করার জন্য মোবাইল নম্বর ইত্যাদি সব বিষয়ে বিস্তারিত প্রচারনার সময় উল্লেখ করে দিন।

এতে করে যারা মধু কিনতে আগ্রহী হবে তারা আপনার সাথে যোগাযোগ করবে । এভাবে আপনি কম দামে মধু কিনে অধিক দামে বিক্রয় করে ছোটখাটো ব্যবসার মাধ্যমে প্রচুর টাকা ইনকাম করতে পারবেন।

৪. চা বিক্রয় ব্যবসা-

একেবারে কম টাকায় আপনি চায়ের ব্যবসাটি করতে পারবেন। এছাড়াও আপনি চাইলে চায়ের পাশা পাশি রুটি, পুড়ি, সিংগাড়া ইত্যাদি তৈরি করে বিক্রির মাধ্যমে আরো বেশি পরিমানে টাকা ইনক্ম করতে পারবেন।

ছোটখাটো ব্যবসা কি করা যায় , ছোট ব্যবসার আইডিয়া বাংলাদেশ , গ্রামে ছোট ব্যবসার আইডিয়া , কম পুঁজিতে লাভজনক ব্যবসা , Small business ideas
চায়ের দোকান

চায়ের ব্যবসা করার জন্য একটি ছোট্ট দোকান দিলেই চলবে। তবে, লোকদের বসার জন্য আপনি ১-২ টি ব্যাঞ্চ রাখতে হবে।

আর গ্যাস সিলিন্ডার ক্রয় করে  জ্বালনি খরচ অনেক কমাতে পারেন।

তাছাড়াও আপনি ফ্লাক্সে করে নিয়ে অলিতে গলিতে ঘুরে ঘুরে চা বিক্রির ব্যবসাটিও করতে পারবেন একেবারেই অল্প পুঁজিতে।

৫. কফি-শপ ব্যবসা-

বর্তমান ডিজিটাল যুগে মানুষ চায়ের পাশাপাশি কফি খেতেও অনেক স্বাচ্ছন্দবোধ করে।

তাই আপনি কফি-শপের ব্যবসাটি অল্প টাকায় শুরু করতে পাারেন।

শুধুমাত্র একটি কফি বানানোর ডিজিটাল মেশিন ক্রয় করে ডিজিটাল পদ্ধতিতে কফিও বানিয়ে নিয়ে বিক্রি করতে পারেন, এর জন্য আপনার লাকড়ি বা খড়ির দরকার হবে না।

এক কাপ কফি তৈরির করার জন্য আপনার সর্বোচ্চ ১৩ টাকার মতো খরচ করে সেটি আপনি অনায়াসেই ২০ টাকায় বিক্রয় করতে পারবেন।

এই ব্যবসাটিেআপনি গ্রাম অথবা শহরের যে কোনো যায়গাতেই করতে পারবেন।

৬. অটো রিক্সা চালানো-

বর্তমান সময়ের একটি ছোট ব্যবসা হলো অটো রিক্সা চালানোর ব্যবসা। যা আপনি অনেক স্বাধীন ভাবে চালাতে পারবেন।

বর্তমান সময়ে রাস্তাঘাট, ব্রিজ, কালভার্ট ইত্যাদির অনেক উন্নতির ফলে আপনি যে কোনো যায়গাতে এই ব্যবসাটি করতে পারবেন।

তবে এর জন্য আপনাকে একটি অটো রিক্সা ক্রয় করার মতো সামর্থ থাকতে হবে। নিজের অটো রিক্সা থাকার কারণে আপনি যখন খুশি তখন সেটি রাস্তার বের করে ভাড়ার মাধ্যমে টাকা ইনকাম করতে পারবেন।

৭. মেডিকেল ফার্মেসী ব্যবসা-

আমাদের সকলেরই কম বেশি মেডিকেল ফার্মেসীতে যেতে হয় ঔষধ ক্রয় করার জন্য । চিকিৎসা আমাদের আমাদের একটি মৌলিক অধিকার।

তাই অসুন্থ্যতার সময় আমরা বিভিন্ন ধরনের ঔষধ ক্রয় করে থাকি।

আপনি চাইলে একটি ফার্মেসীর দোকান দিয়ে ঔষধ বিক্রি করার ব্যবসাটি করতে পারেন । এতে অনেক লাভ করা যায়।

৮. কাঁচামালের ব্যবসা- 

গ্রামের ছোট ব্যবসার আইডিয়াগুলোর মধ্যে আরেকটি লাভজনক ছোট ব্যবসা হলো কাঁচামাল বিক্রয় ব্যবসা।

এই ব্যবসা করতে চাইলে আপনি গ্রামের বাজারে অথবা শহরে একটি খোলা দোকান দেওয়ার মাধ্যমে কাঁচামাল ব্যবসাটি করতে পারবেন।

আপনি পাইকারি দরে কাঁচামাল ক্রয় করে আপনার দোকান থেকে খুচরা দরে বিক্রয় করতে পারেন । এতে করে আপনার অনেক টাকা লাভ হবে । তবে এখানে লস হওয়ার সম্ভানা নেই বললেই চলে।

কেননা আপনি যে দিন যেই দামে ক্রয় করবেন তার চেয়ে অবশ্যই বেশি দরে বিক্রয় করে থাকবেন।

এত আপনার দোকান বা ঘর ভাড়াও অনেকটাই কম লাগবে।

আবার অনেকেই গ্রামের কৃষকদের কাছ থেকে সরাসরি কাঁচামাল ক্রয় করে শহরে গিয়ে বেশি দামে বিক্রয় করে থাকেন। এতে আরো বেশি লাভ করা যায়।

৯. কুটির শিল্পের ব্যবসা-

গ্রামের আরেকটি ছোট ব্যবসার আইডিয়া হল কুটির শিল্পের ব্যবহার। আপনি গ্রামীণ বেকার মহিলাদেরকে কাজে লাগিয়ে এই ব্যবসাটি শুরু করতে পারেন।

এ ব্যবসা করার জন্য আপনাকে গ্রামের মহিলাদেরকে কুটির শিল্পের কাজগুলো নিখুতভাবে করানোর জন্য তেরি করে নিতে হবে।

এরপর আপনি এগুলো গ্রামের বা শহরের অনেক দামে বিক্রয় করতে পারবেন।

তাছাড়া বর্তমানে অনলাইনে কুটির শিল্পের বিক্রয় করার বিভিন্ন প্লাটফর্ম দেখা যায়। অনেকেই কুটির শিল্প ব্যবসাটিকে ডিজিটাল মার্কেটিং এর মাধ্যমে বিক্রয় করে কত টাকা ইনকাম করছেন।

১০. মোবাইল সার্ভিসিং-

বর্তমানে ছোটখাটো ব্যবসা গুলোর মধ্যে আরেকটি লাভজনক ছোট ব্যবসা হল মোবাইল সার্ভিসিং করা।

আপনি এই কাজটি যদি করার ইচ্ছা করেন তাহলে পাঁচ থেকে ছয় মাসের মধ্যে এই কাজটি শিখে নিয়ে গ্রাম অথবা শহরের যে কোন জায়গায় দোকানের দিয়ে ব্যবসাটি শুরু করতে পারেন।

মোবাইল সার্ভিসিং করার পাশাপাশি আপনি মোবাইল এর সরঞ্জামাদিও বিক্র করতে পারবেন।

ব্যবসা করার জন্য আপনাকে একটি দোকান ভাড়া নিতে হবে । আর আপনাকে কিছু মোবাইল সার্ভিসিং করার জন্য যন্ত্রাংশ ক্রয় করে নিতে হবে।

খুব অল্প টাকায় এই ব্যবসাটি আরম্ভ করতে পারবেন। এই ব্যবসা করার মাধ্যমে আপনি অনেক মোবাইল সার্ভিসিং করার সুযোগ পাবেন । এতে করে আপনার অনেক টাকা ইনকাম করতে পারবেন।

১১. বেকারির ব্যবসা-

কম টাকার মধ্যে আপনি বেকারির মতো ছোট্ট ব্যবসাটি শুরু করতে পারেন । এটি আপনি গ্রামে অথবা শহরের যে কোনো যায়গায় করতে পারবেন।

বেকারির ব্যবসা করার জন্য আপনাকে বিভিন্ন খাবার যেমন- বিস্কুট, পাউরুটি, চানাচুর, কেক ইত্যাদি তৈরি করার দক্ষতা থাকতে হবে। অথবা তৈরি করার জন্য কোনো কর্মচারীর প্রয়োজন হবে।

১২. কলা বিক্রির ব্যবসা-

বাংলাদেশের ছোট ব্যবসার আইডিয়াগুলোর মধ্যে আরেকটি ছোট ব্যবসা হচ্ছে কলা বিক্রির ব্যবসা।

সবুজ শ্যামল বাংলাদেশে প্রচুর পরিমাণে ধান, পাট, গম, ভুট্টার পাশা পাশি কলাও প্রচুর পরিমানে উৎপাদন করা হয়।

আমরা সবাই কমবেশি কলা ক্রয় ক্রয় করে এবং খেয়ে থাকি । বাংলাদেশের সবজায়গাতেও প্রচুর পরিমানে কলা পাওয়া যায়।

আরো পড়ুন, 

কলা একটি বারোমাসি ফসল, তবুও এর প্রচুর চাহিদাও রয়েছে।

তাই আপনি চাইলে বাংলাদেশের যে কোনো যায়গায় কলা বিক্রির ব্যবসাটি করতে পারেন।

এতে আপনার কম খরচেই ব্যবসাটি পরিচালনা করতে পারবেন।

১৩. গ্যাসের চুলা ও সিলিন্ডার বিক্রি-

গ্যাসের চুলা এবং সিলিন্ডারের ব্যবহার দিন দিন বেড়েই চলেছে।

আপনি চাইলে শহর থেকে গ্যাসের চুলা পাইকারি ধরে ক্রয় করে খুচরা ধরে বাসায় গিয়ে অথবা গ্রামে গ্রামে ঘুরে ঘুরে বিক্রি করতে পারেন।

এই ব্যবসা করার জন্য আপনি একটি সাইকেল সাইকেল অথবা ভ্যান গাড়িতে করে বিক্রি করতে পারেন।

ব্যবসাটি প্রসার করার জন্য আপনি বিভিন্ন যায়গায় আপনার মোবাইল নাম্বার দিয়ে যোগাযোগ করার জন্য দিতে পারেন । অথবা সাইনবোর্ড ঝুলিয়ে দিতে পারেন যে, বাসায় গিয়ে গ্যাস সিলিন্ডার পৌছে দেওয়া হয়।

এরপর যাদের গ্যাস সিলিন্ডারের প্রয়োজন হবে তারা আপনাকে ফোন করবে গ্যাসস সিলিন্ডার নেওয়ার জন্য। অতপর আপনি তাদের বাসায় গিয়ে গ্যাস সিলিন্ডার দিয়ে আসলেন।

আর আপনি পৌছানোর খরচ সহ  চার্জ নিতে পারবেন । এতে আপনি ভালো পরিমাণে টাকা লাভ করতে পারবেন।

১৪. স্টেশনারী ব্যবসা-

আপনি কম টাকার ছোটখাটো ব্যবসা গুলোর মধ্যে স্টেশনারি ব্যবসা শুরু করতে পারেন।

স্টেশনারি ব্যবসা করার জন্য আপনাকে একটি দোকান দিতে হবে । তারপর  ছাত্র-ছাত্রীদের পড়াশোনার জন্য প্রয়োজনী  বই, খাতা এবং কলম সহ অন্যান্য স্টেশনারি মালামাল গুলি সংগ্রহ করে রাখতে হবে।

এই ব্যবসাটি করার মাধ্যমে আপনি ভালো পরিমানে টাকা ইনকাম করতে পারবেন।

১৫. ঝাল মুরির ব্যবসা-

আপনার যদি একেবারে পুঁজি না থাকে । তাহলে আপনি ঝাল মুরির ব্যবসা শুরু করতে পারেন। সর্বোচ্চ ১-২ হাজার টাকার মাধ্যমেই এই ব্যবসাটি করতে পারবেন।

অথবা বিনা পুঁজিতে বা বাকি ক্রয় করেও ঝালমুরির ব্যবসাটি আপনি শুরু করতে পারেন।

আপনার পরিচিত দোকান থেকে মুড়ির বস্তা বাকিতে কিনে এবং অন্যান্য মসলা যেমন- পেয়াজ, মরিচ, আদা, রসুন ইত্যাদিও কাচামালের দোকান থেকে নিয়ে ঝাল মুরি বিক্রির শেষে পরিশোধ করে দিতে পারেবেন।

ভিডিও দেখে টাকা আয় করার apps এবং সেরা ওয়েবসাইট সমূহ

১৬. আচার বিক্রির ব্যবসা-

বাংলাদেশের আরেকটি ছোট ব্যবসা হলো আচার বিক্রির ব্যবসা।

আপনাকে এই ব্যবসাটি করার জন্য ঝালমুরির ব্যবসা করার মতোই তেমন টাকার প্রয়োজন পড়বে না।

তবে আপনাকে বিভিন্ন ধরনের আচার বানানোর অভিজ্ঞতা থাকতে হবে।

বিভিন্ন ফলের আচার বানিয়ে সেগুলোকে আপনি সেগুলো বিভ্নি শিক্ষা প্রতিষ্ঠান, অফিস, আদাল, রেল স্টেশন বাজার, লঞ্জঘাট, মেলা ইত্যাদিতে গিয়ে বিক্রয় করতে পারবেন।

আচার বিক্রির ব্যবসাটি করে  আপনি দ্বিগুন লাভ করতে পারবেন।

১৭. ফলের দোকান-

বাংলাদেশের মানুষ আগের তুলনায় এখন অনেক বেশি বেশি, বিদেশি বিভিন্ন ধরনের ফল খেয়ে থাকে। আপনি চাইলে এই ফলের ব্যবসাটিও এড করার মাধ্যমে ভালো পরিমানে টাকা ইনকাম করতে পারেন।

ফলের ব্যবসাতে প্রচুর লাভ করা যায়।

ফলের ব্যবসা করার জন্য আপনাকে একটি দোকান নিতে হবে। তারপর বিভিন্ন ধরনের ফল সচরাচর যেগুলো আমরা খেয়ে থাকি অর্থাৎ সীজনাল সকল ফল সংগ্রহ করে রাখতে হবে।

যাতে করে সাধারণত কোনো কাস্টমার ফল কিনতে এসে ফেরত না যায়।

১৮. ফুলের ব্যবসা-

আমাদের অনেক সময়ে বিভিন্ন ধরনের ফুলে প্রয়োজন হয়ে থাকে। তাছাড়া আমরা সবাই ফুলকে ভালোবাসি । সবাই কম বেশি ফুল ব্যবহার করে থাকি।

এখন বর্তমানে তাজা ফুলের পাশাপাসি বিভিন্ন ধরনের কৃত্তিম ফুলের ব্যবহারও দেখা যায়। আমরা যখন কোনো অনুষ্ঠানে যায় তখন আমরা তাজা ফুলের পাশাপাশি বিভিন্ন ধররেন কৃত্তিম ফুল, বেলুন, লাইটিং ব্যবস্থা ইত্যাদি দেখে থাকি।

তাই আপনি চাইলে ফুলের ব্যবসাটি শুরু করতে পারেন । এবং সাথে অন্যান্য কৃত্তিম সাজ-সরঞ্জামগুলো রাখতে পারেন।

এই ছোট ব্যবসাতেও আপনি প্রচুর পরিমানে লাভ করতে পারবেন।

অবশ্যই পড়ুন, 

আজকের শেষ কথা,

আজকের আর্টিকেলে আমি আপনাদের সাথে গ্রামে থেকে কি কি ব্যবসা করা যায়? ছোটখাটো ব্যবসা কি করা যায়?  গ্রামের ব্যবসার আইডিয়া,  ছোট ব্যবসার আইডিয়া বাংলাদেশ (Small business ideas in Bangladesh) গুলো সম্পর্কে বিস্তারিত আলোচনা করেছি।

বন্ধূরা বাংলাদেশের ব্যবসার আইডিয়া সম্পর্কে লেখা আর্টিকেলটি আপনার কেমন লেগেছে তা কমেন্ট করে জানিয়ে দিন।

আর আর্টিকেলটি যদি আর্টিকেলটি ভালো লেগে থাকে তাহলে অবশ্যই আপনার বন্ধুদের সাথে শেয়ার করুন।

ছোট ব্যবসার আইডিয়ার পাশাপাশি ব্যবসা সম্পর্কিত আরো গুরুত্বপূর্ণ টিপ্স পেতে আমাদের সাথেই থকুন। ধন্যবাদ

2 thoughts on “ছোটখাটো ব্যবসা কি করা যায়? ছোট ব্যবসার আইডিয়া বাংলাদেশ”

Leave a Comment